ওয়ার্ল্ড সায়েন্স ডে ২০২০: মানবসভ্যতার উন্নতি ও শান্তির লক্ষ্যে এই দিনটির তাৎপর্য কী জেনে নিন! | science day for peace and development 2020 here is what you should know about this special day | national

Nation News of India


ওয়ার্ল্ড সায়েন্স ডে ২০২০: মানবসভ্যতার উন্নতি ও শান্তির লক্ষ্যে এই দিনটির তাৎপর্য কী জেনে নিন!

Representative Image

আসলে বিজ্ঞান ছাড়া আমাদের এক পা-ও এগিয়ে যাওয়ার উপায় নেই।

#নয়াদিল্লি:  নাম থেকেই বোঝা যায় স্পষ্ট ভাবে যে মানবসভ্যতার সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জুড়ে বিজ্ঞানের সম্পর্ককেই উদযাপন করে প্রতি বছর এই দিন, নভেম্বর মাসের ১০ তারিখে!

আসলে বিজ্ঞান ছাড়া আমাদের এক পা-ও এগিয়ে যাওয়ার উপায় নেই। মানুষ যা কিছুর বলে এই পৃথিবীর অন্য প্রাণীদের থেকে এগিয়ে গিয়েছে, স্থাপন করেছে সমাজ, কালক্রমে লাভ করেছে শ্রেষ্ঠত্বের শিরোপা- সেই সব কিছুই বিজ্ঞানের অবদান।

ওয়ার্ল্ড সায়েন্স ডে-র ইতিহাস:

এই দিনটির উদযাপনের সূত্র জড়িয়ে রয়েছে ১৯৯৯ সালে। সেই বছরে বুদাপেস্ট শহরে বিজ্ঞানের যে বিশ্ব সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল, সেখান থেকেই এই দিনটির উৎপত্তি। পরে ২০০১ সালে UNESCO এই দিনটিকে ওয়ার্ল্ড সায়েন্স ডে ফর পিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বলে আখ্যা দেয়। নানা সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সেই মতো এই দিনটি সাধ্যমতো পালন করে থাকে।

ওয়ার্ল্ড সায়েন্স ডে-র লক্ষ্য:



এই জায়গায় এসে দিনটির সঙ্গে বিশেষ ভাবে জড়িয়ে থাকা দুই শব্দের দিকে লক্ষ্য না রাখলেই নয়। এই দুই শব্দ হল শান্তি এবং উন্নয়ন। বলাই বাহুল্য, বিজ্ঞান একই সঙ্গে পালন করে আশীর্বাদ এবং অভিশাপের যুগ্ম ভূমিকা। পরমাণু বোমা, যা বিশ্ব ধ্বংস করে দিতে পারে নিমেষে, সেও তো বিজ্ঞানেরই অবদান। কিন্তু এই সব নেতিবাচক দিক দূরে সরিয়ে রেখে প্রাত্যহিক জীবনে কী ভাবে বিজ্ঞানের আশীর্বাদটুকুই শুধু গ্রহণ করা যায়, তার প্রসারই হল এই দিনটি উদযাপনের লক্ষ্য। একই সঙ্গে এই দিন কুসংস্কার দূরে সরিয়ে রেখে বিজ্ঞানমনস্কতার প্রসারেও নানা কর্মসূচী গ্রহণ করে।

চলতি বছরে ওয়ার্ল্ড সায়েন্স ডে-র থিম:

একেকটি বছরে এই দিন বিশ্বের তৎকালীন ভূমিকায় প্রাসঙ্গিক দিকগুলি নিয়ে কাজ করে চলে। খুব স্বাভাবিক ভাবেই তাই এ বছরের থিমে প্রাধান্য পেয়েছে সারা বিশ্বব্যাপী কোভিড ১৯ ভাইরাসের সংক্রমণের দিকটি। অস্বীকার করার উপায় নেই, একমাত্র বিজ্ঞানের সহায়তাতেই এই মারণব্যাধির সঙ্গে লড়াইয়ে জয়লাভ করা সম্ভব। পৃথিবীর নানা প্রান্তে আপাতত বিজ্ঞানীরা কাজ করে চলেছেন এই ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কার নিয়ে, সেই প্রয়াসও উদযাপন করছে ২০২০ সালের ওয়ার্ল্ড সায়েন্স ডে। পাশাপাশি, কী ভাবে বিজ্ঞান এবং স্বাস্থ্যসম্মত পথে নিজেকে নিরাপদ রাখা যায়, সেই বার্তাও প্রচার করছে ওয়ার্ল্ড সায়েন্স ডে।


Published by:
Debalina Datta

First revealed:
November 10, 2020, 7:51 PM IST

পুরো খবর পড়ুন